মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
পাতা

গল্প নয় সত্যি

"ফেসবুকের মাধ্যমে পরিসংখ্যানিক তথ্যসেবা সহজীকরণ" ও একটি বিশ্লেষণ

*******************************************************

'জনকল্যাণে পরিসংখ্যান' শ্লোগানটি বেশ কয়েক বছর ধরে আমরা শুনে আসলেও সাধারণ মানুষের এ বিষয়ে তেমন আগ্রহ লক্ষ্য করা যায় নি। এর কারণ হিসেবে বলা যায়, পরিসংখ্যান কী, কেন ও কোথায় পাওয়া যায় এবং তা জনকল্যাণেই বা কিভাবে লাগে- এসব প্রশ্নের উত্তর সম্পর্কে এই অবাধ তথ্য প্রযুক্তির যুগেও সাধারণ মানুষ যে খুব একটা অবগত, তা কিন্তু নয়।

অথচ, জনগণের সর্বোচ্চ কল্যাণ সাধনের জন্য সরকার ঘোষিত ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণের প্রথম ও প্রধানতম মাধ্যম হল তথ্য প্রযুক্তি। আর 'তথ্য প্রযুক্তি' কথাটা বলতে গেলে প্রথমে যেটা চলে আসে তা হল 'তথ্য'। তথ্য যেখানে অনুপস্থিত, সেখানে প্রযুক্তি ব্যবহার করেও মানুষের কল্যাণ সাধন অসম্ভব। কাজেই, তথ্য প্রযুক্তির মাধ্যমে ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণে সফলতার দ্বারপ্রান্তে পৌঁছতে হলে প্রথমেই যেটা দরকার তা হল, সাধারণ মানুষের পাশাপাশি বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার লোকদের জন্য তথ্যের সহজ-প্রাপ্তি ও সহজলভ্যতা নিশ্চিত করা।

ছাত্র-শিক্ষক, গবেষক, চাকরিজীবি, উন্নয়নকর্মী, এনজিওকর্মী, সমাজসেবীসহ বিভিন্ন পেশাজীবি ও দাতাগোষ্ঠী যে কোন সময়ে, প্রয়োজন মাফিক যে কোন ধরণের তথ্য ঘরে বসে চাইলেই যেন তাদের চাহিত তথ্য পেতে পারেন, এমন কোন সহজ পদ্ধতি বা ব্যবস্থার প্রয়োজনীতা তথ্য ব্যবহারকারীগণ অনেক দিন ধরেই অনুভব করছিলেন।

বিবিএস (Bangladesh Bureau of Statistics), বরিশাল এর সম্মানিত যুগ্মপরিচালক (অ. দা.) জনাব Mizanoor Rahman Howlader স্যার দীর্ঘ সময় ও শ্রম ব্যয় করে তাঁর মেধাকে কাজে লাগিয়ে তথ্যকে জনগণের দ্বারপ্রান্তে পৌঁছে দিতে তেমনই একটি সহজ ও আকর্ষণীয় ব্যবস্থা দাঁড় করিয়েছেন। ব্যবহারকারীদের জন্য তথ্যের সহজপ্রাপ্যতা নিশ্চিত করতে তিনি 'Statistics for all- সবার জন্য পরিসংখ্যান' নামে একটি অনলাইন গ্রুপ প্রতিষ্ঠা করেছেন। এ গ্রুপে যে কেউ যে কোন সময় নিজ পরিচয় দিয়ে প্রয়োজনীয় তথ্য চেয়ে আবেদন করলে দ্রুততম সময়ের মধ্যে আবেদনকারীকে তার প্রয়োজনীয় তথ্য সরবরাহ করা হয়। তথ্য সরবরাহের এ কাজটি একাধিক ক্যাটাগরিতে করা হয়ে থাকে। কিছু তথ্য ধরণ অনুযায়ী তাৎক্ষনিক সরবরাহ করা হয়। সময় সাপেক্ষ তথ্যের ক্ষেত্রে তথ্য প্রদানের নির্দিষ্ট সময় জানিয়ে আবেদনকারীকে ফিডব্যাক দেওয়া হয়। দেশের যে কোন প্রান্ত থেকে যে কেউ নিজের পরিচয় দিয়ে প্রয়োজনীয় তথ্য চেয়ে এই গ্রুপে আবেদন করে তথ্য পেতে পারেন।

এর পাশাপাশি তিনি 'ই-লাইব্রেরী' নামে একটি অনলাইন লাইব্রেরীও প্রতিষ্ঠা করেছেন, যেখানে পাওয়া যায় বিভিন্ন বিষয় ভিত্তিক প্রকাশনা ও পরিসংখ্যান বিষয়ক বিভিন্ন শিক্ষামূলক ভিডিও।

 

সমাজের সকল শ্রেণি-পেশার মানুষকে পরিসংখ্যানিক তথ্য-উপাত্ত ব্যবহারে উদ্বুদ্ধ করার প্রয়াসে জনাব মিঝানুর রহমান হাওলাদার স্যার নাগরিক সেবায় উদ্ভাবনী মূলক একাধিক ভিডিও Youtube-এ আপলোড করেছেন। যেমন, 'সবার জন্য পরিসংখ্যান কর্মসূচির ১ম ভিডিও (Youtube link: https://www.youtube.com/watch?v=ZRNg9rxBqow), নাগরিক সেবায় উদ্ভাবন ভিডিও ২ তথা Functions of District Statistics Office Jessore (Youtube link: https://www.youtube.com/watch?v=Hlbjs19vZAk&t=16s) প্রভৃতি। [যশোরের উপপরিচালক থাকাকালীন সময়ে]

 

২০১৭ সালে যশোর জেলায় ই-সেবা প্রদানকারী দপ্তর ক্যাটাগরিতে জেলা পরিসংখ্যান অফিস, যশোর শ্রেষ্ঠত্ব অর্জন করেছে। গত ১৬ জানুয়ারি, ২০১৭ খ্রি. তারিখ যশোর জেলা পরিষদের নির্বাহী কর্মকর্তা জনাব আহমেদ কবীর এই শ্রেষ্ঠত্ব অর্জনের স্বীকৃতি সনদ ডিডি বিবিএস, যশোর জনাব মিঝানুর রহমান হাওলাদারের হাতে তুলে দিয়েছেন। দেশে পরিসংখ্যান বিভাগের কোন জেলা অফিস ১ম বারের মত এই বিরল সম্মান অর্জন করল। তাই ২০১৭ সালের ১৬ জানুয়ারি দিনটা জেলা পরিসংখ্যান অফিস, যশোরের জন্য তো বটেই, পুরো বিবিএস-এর জন্যই এক অনন্য স্মরণীয় দিন বলে আমরা মনে করি।

 

জেডি, বিবিএস, বরিশাল জনাব Mizanoor Rahman Howlader স্যারের পরিসংখ্যান বিষয়ক এসব উদ্ভাবনীমূলক ধারণা ও কার্যক্রম বাস্তবিকই পরিসংখ্যানিক তথ্যকে সাধারণ মানুষ ও বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষের কাছে সহজলভ্য তথা সহজপ্রাপ্য ও জনকল্যাণকর করতে এবং সরকারের সার্বিক উন্নয়নে সহায়তা করতে কার্যকর ভূমিকা রাখবে বলে আমি মনে করি। 

বিশ্লেষক

নিশাদুল ইসলাম

জেএসএ

ছবি


সংযুক্তি


সংযুক্তি (একাধিক)